নাম দিয়ে জমির দলিল বের করার পদ্ধতি

জমি ক্রয়ের ক্ষেত্রে জমির প্রকৃত মালিকের নাম জানা থাকলে কোন রকম ঝামেলায় পড়ার সুযোগ নেই। আপনি যখন কারো জমি ক্রয় করবেন অবশ্যই জমির মালিকানা যাচাই করে কেনা উচিত। তাছাড়া আপনি বিভিন্ন ঝামেলায় পড়তে পারেন যেমন জমির ভুয়া দলিল দিয়ে আপনাকে জমি বিক্রি করতে পারে, এক্ষেত্রে আপনি যদি সচেতন হন তাহলে অবশ্যই নাম দিয়ে জমির দলিল বা মালিকানা অনলাইনে যাচাই করে নিতে পারবেন।

পূর্বে আমরা দেখিয়েছি কিভাবে দাগ নম্বর, এবং খতিয়ান নাম্বার দিয়ে জমির মালিকানা বের করতে হয়। তবে অনেকে আমাদের কাছে প্রশ্ন করেন নাম দিয়ে জমির দলিল বের করা যায় কিনা। এক্ষেত্রে আমাদের অবশ্যই জানতে হবে দলিল কাকে বলে?

সাধারণত যে কোন লিখিত বিবরণ যা আইনগত সাক্ষ্য হিসাবে গ্রহণযোগ্য তাকে দলিল বলে। তবে ভূমি নিবন্ধন আইন মোতাবেক জমি ক্রেতা এবং বিক্রেতা সম্পত্তি হস্তান্তর করার জন্য যে চুক্তিপত্র সম্পাদন ও রেজিস্ট্রি করেন তা ই হলো দলিল। তবে আপনার জন্য জানার বিষয় হল অনলাইন থেকে আপনি শুধু জমির মালিকানা যাচাই করতে পারবেন, এবং দেখতে পারবেন জমির দাগ নাম্বার এবং ক্ষমতা সংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্য।

তবে অনলাইনে মাধ্যমে আপনি দলিলের কোন কপি বের করতে পারবেন না। কিন্তু নির্দিষ্ট পরিমানে ফি প্রদানের মাধ্যমে আপনি খতিয়ানের সার্টিফাইড কপি বের করতে পারবেন।

নাম দিয়ে জমির দলিল বের করার পদ্ধতি

নাম দিয়ে জমির মালিকানা তথ্য যাচাই করার জন্য সরকারি ই পর্চা ওয়েবসাইট ভিজিট করতে হবে এবং সেখানে গিয়ে আপনার পর্চা সিলেকশন করে অধিকতর অনুসন্ধানে যেতে হবে। এরপরে নির্দিষ্ট জমির মালিকের নাম দিয়ে সার্চ করলে জমি সংক্রান্ত তথ্য খুঁজে পাওয়া যাবে।

দাগ নাম্বার দিয়ে জমির মালিকের নাম

তবে একটা বিষয় আপনাকে জেনে নিতে হবে এখন পর্যন্ত সমস্ত বাংলাদেশের ভূমি সংক্রান্ত তথ্য অনলাইন করা হয় নাই। আস্তে আস্তে প্রত্যেকটা অঞ্চলের ভূমি সংক্রান্ত তথ্য অনলাইনে পাওয়া যাবে। উপরের কাঙ্ক্ষিত ফলাফলটি আপনি নিচের পেইজের মতো দেখতে পাবেন এবং এখানে বিস্তারিত তথ্য ক্লিক করলে নিচের মতো দেখানো হবে।

নাম দিয়ে জমির দলিল

এবার আপনি চাইলে খতিয়ান আবেদন অপশন থেকে  একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ ফি প্রদানের মাধ্যমে উক্ত জমির সার্টিফাইড কপি অনলাইন থেকে সংগ্রহ করতে পারবেন।

নাম দিয়ে জমির দলিল তল্লাশি

এছাড়াও আপনি চাইলে ম্যানুয়ালি জমির দলিল তল্লাশি করতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনাকে যা যা করতে হবে তা হলো-

একটি দলিল রেজিস্ট্রি অফিসে সম্পাদন হওয়ার পর গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য নিয়ে সূচিবহি তৈরি করা হয়। একটি সূচিবহি তৈরি হয় দলিলে উল্লেখিত জমির দাতা/বিক্রেতা, গ্রহিতা/ক্রেতা বা অন্য কোন পক্ষের নাম দিয়ে, আর একটি সূচি তৈরি হয় জমির মৌজার নাম দিয়ে।

আপনার কাছে দলিলের কোন তথ্য না থাকলে নির্দিষ্ট ফি পরিশোধ সাপেক্ষে রেজিস্ট্রি অফিসে এই সূচিবহি তল্লাশি করে খুঁজে বের করতে পারেন আপনার কাঙ্খিত দলিলটি।

প্রতি দলিলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির নাম বা অন্তভুর্ক্ত সম্পত্তির বিবরণ সংক্রান্ত তল্লাশির ক্ষেত্রে ১ বছরের জন্য ২০ টাকা এবং অতিরিক্ত প্রতি বছরের জন্য ১৫ টাকা হলে ফি দিতে হবে।

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *