অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ড সংগ্রহ করুন ২ মিনিটে

0

অনলাইন থেকে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম। ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড কিভাবে করব

ভোট দেওয়ার ক্ষেত্রে ভোটার আইডি কার্ড অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়।  আর যারা ভোটার আইডি কার্ড হাতে না নিয়ে ভোটকেন্দ্রে তারা কখনই ভোট প্রদান করতে পারে না।  বর্তমানে বাংলাদেশে অনেকটা জেলা উপজেলায় ভোট চলছে এমনকি সময় ভোটার আইডি কার্ড কত গুরুত্বপূর্ণ তা আমরা সবাই জানি। অনেকই দেখা যায় ভোটার আইডি কার্ডটি হারিয়ে ফেলে আবার অথবা বাড়িতে ফেলে রাখে পরে আর খুঁজে পাওয়া যায় না। এমতাবস্থায় আপনার কি করা উচিত কিভাবে আপনার ভোটার আইডি কার্ডটি পুনরুত্থান করবেন বা পুনরুদ্ধার করবেন? এবং এই কাজটি করে কিভাবে আপনি ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোট প্রদান করবেন ?  আজকের আর্টিকেলে আমরা সবাই সকলকে এই বিষয়টি যেমন ভোটার আইডি কার্ড অনলাইন থেকে সংগ্রহ করার উপায় এবং ভোটার সিরিয়াল নাম্বার জানার উপায় বলার চেষ্টা করব।

শুধুমাত্র ভোট দেয়ার ক্ষেত্রে যে ভোটার আইডি কাড গুরুত্বপূর্ণ এমনটা নয় বরং বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি অফিসিয়াল কাজ করবে একজন মানুষের দৈনন্দিন উপকারে আসে ভোটার আইডি কার্ড।  ভোটার আইডি কার্ড যারা এখন পর্যন্ত নিবন্ধন করেননি তারা বর্তমানে চলমান ভোটার তথ্য হালনাগাদ কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করবে আপনার ভোটার আইডি কার্ড নিতে পারেন।  এতে করে আপনার পরবর্তীতে ভোটার আইডি কার্ড  প্রতিবন্ধকতা জড়িত  সমস্ত কার্যক্রম চালিয়ে যেতে পারবেন। 

আপনি যদি নতুন ভোটার হয়ে থাকেন অর্থাৎ ইতিপূর্বে ভোটার হয়েছেন কিন্তু ভোটার আইডি কার্ড হাতে পাননি আপনি এই প্রক্রিয়াটি ফলো করে অর্থাৎ ভোটার অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে আপনার ভোটার আইডি কার্ড রেজিস্ট্রেশন করে আপনার ভোটার আইডি কার্ডের অনলাইন কপি খুব সহজেই সংগ্রহ করতে পারবেন যতক্ষণ না পর্যন্ত আপনার এলাকায় ভোটার আইডি কার্ড বিতরণ হচ্ছে।  এবং এই প্রক্রিয়ার সংরক্ষিত ভোটার আইডি কার্ড দিয়ে আপনি যাবতীয় সমস্ত কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারবেন। 

আর তাছাড়া যদি আপনি আপনার ভোটার আইডি কার্ডটি হারিয়ে ফেলার ভয়  থাকেন তাহলে আপনার আইডি কার্ডের নাম্বার দিয়ে ভোটার আইডি কার্ড এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে গিয়ে একটি রেজিস্ট্রেশন করে ফেলতে পারেন এতে করে পরবর্তীতে আপনি আপনার ভোটার আইডি কার্ডটি হারিয়ে গেল অনলাইন থেকে সেটি ডাউনলোড করতে পারবেন শুধুমাত্র নির্দিষ্ট পরিমাণ ফি প্রদানের মাধ্যমে। 

আজকের আর্টিকেলে আমি আপনাদেরকে ভোটার আইডি কার্ড সংগ্রহ করার প্রক্রিয়া এবং কিভাবে ভোটার আইডি কার্ড অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে আপনাদের ভোটার আইডি কার্ড  রেজিস্ট্রেশন করবেন এবং ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করবেন সেই প্রক্রিয়া জানাবো

আরো পড়তে পারেন:  ভোটার আইডি কার্ড চেক করার নিয়ম

ভোটার আইডি কার্ড রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া

আপনি যখন ভোটার নিবন্ধন হয়েছেন নিজ নিজ বাড়ি থেকে অথবা উপজেলা গিয়ে তখন আপনাকে একটি ভোটার সিরিয়াল নাম্বার দেওয়া হয়েছে যাকে বলা হয় ভোটার স্লিপ। উক্ত ভোটার স্লিপ দরকার পরবে যখন আপনি ভোটার আইডি কার্ড অনলাইন রেজিস্ট্রেশন করবেন। আমাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে যখন ভোটার তথ্য হালনাগাদ কর্মসূচিতে আমাদের তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে তখন ভোটার আইডি কার্ড ফর্ম 2 এর একটি অংশ আপনাদেরকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। যেটি দেখতে নিচের ছবির মত।

ভোটার স্লিপ । Voter Slip

এখানে উপরে থাকা 8 সংখ্যাটি নাম্বার দেখতে পাবেন সেই স্বর নাম্বারটি আপনার ভোটার স্লিপ নাম্বার যেটি দিয়ে খুব সহজেই আপনি অনলাইন থেকে ভোটার আইডি কার্ড নাম্বার চেক করতে পারবেন এবং ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন।

রেজিস্ট্রেশন  ধাপ 1

প্রথমত আমাদেরকে ভিজিট করতে হবে এই লিংকে https://services.nidw.gov.bd/nid-pub/ এখানে প্রবেশ করার পর নিচের মত একটি ছবি দেখতে পাবেন এখান থেকে রেজিস্ট্রার অপশন এ ক্লিক করতে হবে।

রেজিস্ট্রেশন  ধাপ 2

প্লেস্টেশন  পেইজে আসার পর  নিচের ছবির মত একটি ইন্টারফেস দেখতে পাবেন.। এখানে বলে রাখি  যারা  নতুন ভোটার তাদের যদি ভোটার স্লিপ থাকে তাহলে প্রথম ঘরে ভোটার স্লিপ নাম্বার দিতে হবে অথবা যদি আপনি পুরান ভোটার হয়ে থাকেন তাহলে আপনার ভোটার আইডি কার্ড নাম্বার টি দিতে দিতে হবে। 

দ্বিতীয় ঘরে আপনার জন্ম তারিখটি দিতে হবে অর্থাৎ ভোটার তথ্য প্রদানের সময় আপনার ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন সনদ উল্লেখিত জন্ম তারিখটি প্রদান করতে হবে। প্রথমে দিন তারপরে মাস এবং তার পরে বছর উল্লেখ করতে হবে।

এরপরে একটি ঝাপসা করে ছবি দেখতে পাবে সেই ছবির ভিতরে কয়েকটি ইংরেজি অক্ষর লেখা থাকবে যেটাকে বলা হয় ক্যাপচা।   ছবিতে প্রদর্শিত অক্ষর গুলো ভালো করে লক্ষ্য করে এক একটা অক্ষর নিচের বক্সে টাইপ করবেন। ভুল হলে চলবে না। 

আপনার দেওয়া ইনফরমেশন সবকিছু ঠিক থাকলে সাবমিট বাটনে ক্লিক করবেন

রেজিস্ট্রেশন  ধাপ 3

পরবর্তী পেজে আপনার বর্তমান ঠিকানা এবং আপনার স্থায়ী ঠিকানা দিতে হবে।  যেমন আপনার বিভাগ,  আপনার জেলা,  আপনার উপজেলা।   এক এক করে স্থায়ী এবং অস্থায়ী ঠিকানা দুটি দিতে হবে।  এরপরে পরবর্তীতে ক্লিক করতে হবে 

রেজিস্ট্রেশন  ধাপ 4

পরবর্তী পেইজে ভোটার তথ্য হালনাগাদ এ আপনার দেয়া মোবাইল নাম্বারটা দেখাবে।  মোবাইল নাম্বারটি তে আপনাকে একটি কোড পাঠাতে বলা হবে শুধুমাত্র ভেরিফিকেশন করার জন্য । আপনি চাইলে নাম্বারটি পরিবর্তন করতে পারেন । মোবাইলে কোড পাঠা দেখালে বার্তা পাঠান বাটনটিতে ক্লিক করতে হবে।  এরপরে আপনার মোবাইলে একটি কোড নাম্বার যাবে যে কোডটি পরবর্তী পেজে আপনাকে প্রদান করতে হবে। ভেরিফিকেশন কোড দেওয়া হয়ে গেলে “ বহাল” বাটনে ক্লিক করবেন

রেজিস্ট্রেশন  ধাপ 5

পরবর্তী পেজে নিয়ে যাওয়ার পর নিচের মত একটি ছবি দেখতে পাবেন যেখানে একটি কিউআর কোড উল্লেখ থাকবে।  এ কিউ আর কোড স্ক্যান করে আপনাকে আপনার ছবি অর্থাৎ আপনার মুখমন্ডল ভেরিফিকেশন করতে হবে।  উক্ত ব্যক্তি আপনি কি না সেটি প্রমাণ করতে হবে ওয়েবসাইটে। 

ভোটার আইডি কার্ড চেক

এটি করার জন্য গুগল প্লে স্টোর থেকে NID Wallet অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস টি ডাউনলোড করে নিবেন।  ওপেন করার পরে উপরের প্রদর্শিত কিউআর কোডটি স্ক্যান করবেন এবং আপনার মুখমন্ডল ভেরিফিকেশন করবেন। প্রথমে আপনার মাথা ডানে ঘুরবেন ঘুরবেন এবং এরপরে সামনে তাকাবেন। 

photo nid wallet apk play store

আপনার মুখমন্ডল  সনাক্ত হয়ে গেলে আপনাকে পরবর্তী পেজে নিয়ে যাবে। এবং আপনাকে আপনার অ্যাকাউন্টের নিশ্চিত সুরক্ষার জন্য একটি পাসওয়ার্ড সেট করতে বলা হবে।  আপনি চাইলে পাসওয়ার্ড টি ছেক না করে এই ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন তবে পরবর্তীতে কোন রকম ঝামেলা না করতে চাইলে একটি পাসওয়ার্ড সেট করে দিবেন। 

 আরো পড়তে পারেন:  ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করার নিয়ম

ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড

একাউন্ট রেজিস্টার হয়ে গেলে অর্থাৎ আপনি যখন পাসওয়ার্ড সেট করবেন তখন আপনার অ্যাকাউন্টটি তে লগইন হয়ে যাবে। অ্যাকাউন্ট লগইন হয়ে গেলে নিচের মত একটি ছবি বা ইন্টারফেস দেখতে পাবেন

এছাড়া যদি আপনার লগইন না হয়ে থাকে তাহলে https://services.nidw.gov.bd/nid-pub/ এই লিংকে গিয়ে একটু নিচে স্ক্রল করলে লগ ইন করার পেজ পাবেন।  এখানে আপনার ভোটার স্লিপ নাম্বার এবং আপনার দেওয়া পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন বাটনে ক্লিক করবেন। 

ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করার জন্য যখন উপরের পেজটি দেখতে পাবেন তখন  আপনার ছবির নিচের ডাউনলোড বাটনে একটি অপশন পাবেন।  এটিতে ক্লিক করলে আপনার ভোটার আইডি কার্ড টি পিডিএফ ফাইল আকারে ডাউনলোড হয়ে যাবে।

গুরুত্বপূর্ণ  কথা

আপনি যদি পুরাতন ভোটার হয়ে থাকেন অর্থাৎ পুরাতন ভোটার আইডি কার্ড দিয়ে অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করে থাকেন তাহলে আপনার ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করার জন্য আপনার ভোটার আইডি কার্ড হারানোর ফি  প্রদান করতে হবে।  অর্থাৎ আপনি অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন কিন্তু ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করার জন্য আপনাকে নির্দিষ্ট পরিমাণ ফি প্রদান করতে হবে। 

আর যারা এখন পর্যন্ত ভোটার আইডি কার্ড হাতে পাননি অর্থাৎ নতুন ভোটার নিবন্ধন হয়েছেন তারা ভোটার স্লিপ দিয়ে আনলিমিটেড ডাউনলোড করতে পারবেন একদম ফ্রিতে। 

Leave A Reply

Your email address will not be published.