অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ড সংগ্রহ করুন নতুন নিয়মে

0

অনলাইনে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম।  নতুন আইডি কার্ড কিভাবে দেখবেন

অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ড সংগ্রহ করুন কয়েকটি নিয়মে।  যদি আপনি নতুন ভোটার নিবন্ধন হয়ে থাকেন তাহলে আপনি খুব সহজেই ভোটার নিবন্ধন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার পরেই অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ডটি সংগ্রহ করতে পারবেন অর্থাৎ আপনার ভোটার আইডি কার্ড টি ডাউনলোড করতে পারবেন যা একটি পিডিএফ ফাইল থাকবে। পরবর্তীতে সেটি আপনি প্রিন্ট করে আপনি সচরাচর যে কোন কাজের জন্য ব্যবহার করতে পারবেন।

জরুরী কাজের জন্য আমরা অনেকেই ভোটার আইডি কার্ড নিবন্ধন করে থাকি।  এছাড়া আমরা অনেকেই বিগত সালের সরকার কর্তৃক ভোটার নিবন্ধন কার্যক্রম এমন অনেকেই নাম এবং আমাদের পার্সোনাল ব্যক্তিগত তথ্য হালনাগাদ কর্মসূচি প্রদান করেছি।  পরবর্তীতে আমরা বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে আমাদের আইডি কার্ড ভেরিফিকেশন সিস্তেম সম্পন্ন করেছে আমাদের ছবি প্রদান করেছি।  কিন্তু আমরা এখন পর্যন্ত অনেকেই আমাদের ভোটার আইডি কার্ড হাতে পাইনি।  বিগত বছরে যারা ভোটার আইডি কার্ড নিবন্ধন করেছেন তাদের মধ্যে যাদের জন্ম  2001 সালে তারা অনেকেই স্মার্ট আইডি কার্ড হাতে পেয়েছেন।  কিন্তু সমস্যা হল যাদের বয়স 2001 সাল থেকে বেশি অর্থাৎ 2001 সালের পরে হয়েছে তারা অনেকেই স্মার্ট কার্ড পাইনি যার কারণে যারা অনলাইন থেকে আইডি কার্ড বের করে নিতে পারবেন।  আজ আমি আপনাদের শিখাব কিভাবে আপনারা আপনাদের আইডি কার্ডটি অনলাইন থেকে সংগ্রহ করবেন।  অথবা আপনার নিবন্ধন করা আইডি কার্ডটি অনলাইনে এসেছে কিনা সেটিও আপনি যাচাই করতে পারবেন।

ভোটার আইডি কার্ড চেক ভোটার আইডি কার্ড তথ্য দেখার সিস্টেম টি নির্বাচন কমিশন সাময়িকভাবে বন্ধ রেখেছে তাই এই সময়ে আপনারা ভোটার আইডি কার্ড চেক করতে পারবেন না।  যাদের কাছে ভোটার স্লিপ নম্বর রয়েছে তারা স্লিপ নাম্বার দিয়ে ওয়েব সাইটে রেজিস্টার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে আপনার ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন

অনলাইন থেকে আপনার আইডি কার্ড সংগ্রহ করুন

অনলাইন থেকে আইডি কার্ড সংগ্রহ করার.১ নিয়ম রয়েছে প্রথমত হল আমরা যখন ভোটার নিবন্ধন হয়েছি তখন আমাদেরকে ভোটার নিবন্ধন ফরমের একটি অংশ দেয়া হয়েছিল যাকে বলা হয় ভোটার স্লিপ দিয়ে অনলাইন থেকে ভোটার আইডি কার্ড বের করতে পারবো। 

Voter Slip

প্রথমে এই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন। https://services.nidw.gov.bd/nid-pub/ এখান থেকে আপনাদের রেজিস্টার নামে একটি অপশন দেখতে পাবেন সেই রেজিস্টার অপশনটিতে ক্লিক করুন।  এরপর নিচের মত একটি ছবি দেখতে পাবেন।

 

 

  • এখানে প্রথম ঘরে আপনারা ভোটার স্লিপ থাকা নাম্বারটি প্রদান করবেন।
  • দ্বিতীয় ঘরে আপনার ভোটার নিবন্ধন করার সময় প্রদান করা জন্ম তারিখটি বসাবেন
  • এরপরই আবছা আবছা করে  কয়েকটি ইংরেজি অক্ষর দেখতে পাবেন সেই অক্ষর গুলো নিচের বক্সে বসাবেন এবং সাবমিট বাটনে ক্লিক করবেন।

এরপরে যার ভোটার আইডি কার্ড যদি আপনার হয়ে থাকে তাহলে আপনার ভেরিফিকেশন করতে বলা হবে এটি করার জন্য গুগল প্লে স্টোর থেকে nid wallet অ্যাপটি ডাউনলোড করে নিবেন। এরপরে কম্পিউটারে থাকা কিউআর কোডটি স্ক্যান  করবেন। এরপরে আপনাকে আপনার চেহারা এডিকসেদিক ঘুরিয়ে ভেরিফিকেশন সম্পন্ন করতে হবে। 

ভোটার আইডি কার্ড চেক

আপনার ফেস ভেরিফিকেশন সম্পন্ন হয়ে গেলে পরবর্তী পেজে নিয়ে যাবে।  সেখান থেকে আপনার মোবাইল নাম্বারে একটি কোড পাঠানো হবে।  সেই কোডটি আপনি কম্পিউটারের স্ক্রিনে বসিয়ে আপনার একাউন্টের পরবর্তী ধাপে চলে যাবেন। এরপরে পাসওয়ার্ড সেট করতে বলা হবে আপনি যদি পাসওয়ার্ড চেক করতে চান তাহলে পাসওয়ার্ড সেট বাটন এ ক্লিক করে ছয় সংখ্যার একটি পাসওয়ার্ড সেট করে পরবর্তী ধাপে ক্লিক করুন। 

আপনার অ্যাকাউন্টটি সফলভাবে রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার পরে এর নিচের মত একটি ইন্টারফেস দেখতে পাবেন এখান থেকে একদম নিচে ডাউনলোড বাটন নামে একটি অপশন দেখতে পাবেন এখানে ডাউনলোড বাটনে ক্লিক করলে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র ভোটার আইডি কার্ডটি পিডিএফ ফাইল ডাউনলোড হয়ে যাবে। 

 

এই অনলাইন কপি আপনি যেকোনো কম্পিউটার দোকান থেকে প্রিন্ট করে সেটি যে কোন কাজের জন্য ব্যবহার করতে পারবেন। শুধুমাত্র ভোটার আইডি কার্ড অনলাইন কপি দিয়ে আপনি যেকোনো প্রয়োজনীয় কাজ চালিয়ে যেতে পারবেন।এক্ষেত্রে আপনাকে ভোটার আইডি কার্ড এর মূলকপি কোন প্রয়োজন হবে না অর্থাৎ বর্তমানে যেয়ে স্মার্ট কার্ড প্রদান করা হয় শিরিন সরকার হবে না।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.